অধ্যক্ষের বাণী
আস্সালামু আলাইকুম,
একবিংশ শতাব্দীর সূচনালগ্নে জ্ঞান-বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তির সমন্বয়ে উন্নত জাতি হিসেবে বিশ্ব আসনে সমাসীন হবার প্রধান অবলম্বন হল সুশিক্ষিত মানব সম্পদ। যে কোন দেশের এ মহা মূল্যবান মানব সম্পদের উন্নয়নে সন্দেহাতীতভাবে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে সে দেশের শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান। তাই আমাদের দেশে উন্নত মানব সম্পদ গড়ার লক্ষ্যে ও শিক্ষার আলো সাধারণ জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেবার নিমিত্তে বাংলাদেশ বিমান বাহিনী কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত হয় বিএএফ শাহীন কলেজ শমশেরনগর, যা প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই সিলেট বিভাগে শিক্ষা বিস্তারে অন্যতম ভূমিকা রাখছে। এই কলেজ বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষায় এবং সহপাঠ কার্যক্রমে সাফল্য অর্জন করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় পর পর তিনবার মৌলভীবাজার জেলার শ্রেষ্ঠ কলেজ এবং ২০১৮ সালে সিলেট বিভাগের শ্রেষ্ঠ কলেজ হিসাবে স্বীকৃতি পেয়েছে। এ সাফল্য এসেছে অত্র প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রী, অভিভাবকবৃন্দ, মেধাবী শিক্ষক মন্ডলী এবং প্রতিষ্ঠান সংশ্লিষ্ট সবার সম্মিলিত ও ঐকান্তিক প্রচেষ্টায়। এ প্রতিষ্ঠানটি সম্পূর্ণভাবে যানজট, কোলাহল ও ধূমপান মুক্ত চা বাগান পরিবেষ্টিত মনোরম প্রাকৃতিক পরিবেশে অবস্থিত।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক প্রণীত জাতীয় শিক্ষা নীতির আলোকে এ প্রতিষ্ঠান যোগ্য শিক্ষক নির্বাচন, শিক্ষকদের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার তাত্ত্বিক ও প্রায়োগিক জ্ঞান এবং দক্ষতা বৃদ্ধির নিমিত্তে বিভিন্ন বিষয়ভিত্তিক প্রশিক্ষণ, বুনিয়াদি প্রশিক্ষণসহ উচ্চতর শিক্ষা অর্জনের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করছে। এ ছাড়াও শিক্ষার্থীদের নিরাপদ ও শিশুবান্ধব শিক্ষার অনুকূল পরিবেশ তৈরির ক্ষেত্রে এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উন্নত মানের ভৌত অবকাঠামো ও সুদৃশ্য মনোরম পরিবেশ নিশ্চিত এবং শিখন প্রক্রিয়া আধুনিকীকরণ করা হয়েছে।

শিক্ষার্থীদের যুগোপযোগী শিক্ষা, শারীরিক, মানসিক ও সাংস্কৃতিক প্রতিভা বিকাশে শিক্ষার বিভিন্ন স্তরে বাঙালি সংস্কৃতি, কৃষ্টি, ঐতিহ্য, ইতিহাস, স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে লালন করে আসছে বিএএফ শাহীন কলেজ শমশেরনগর। যার ফলে আমাদের শিক্ষার্থীরা আন্তঃশাহীন প্রতিযোগিতাসহ জাতীয় পর্যায়ে বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় দেশ সেরা হওয়ার গৌরব অর্জন করে আসছে। এছাড়াও মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুমে পাঠদান প্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে, যা শিশুকে যুগোপযোগী শিক্ষায় সম্পৃক্ত করছে। এই প্রতিষ্ঠানের সম্মৃদ্ধ গ্রন্থাগার, কম্পিউটার ল্যাব, পর্যাপ্ত শিক্ষা উপকরণ, কালচারাল ক্লাব, বির্তক ও কুইজ ক্লাব, ইংলিশ ল্যাংগুয়েজ ক্লাব ও বিষয়ভিত্তিক বিজ্ঞান ক্লাবসমূহ শিক্ষার্থীদের সুপ্ত প্রতিভা বিকাশে এবং চৌকস ব্যক্তি গঠনে অবদান রাখছে। প্রতিষ্ঠানে শরীর চর্চা ও খেলাধুলার আয়োজন শিক্ষার্থীদের মন ও মানসকে সর্বদা উজ্জীবিত রাখতে সক্ষম হয়েছে। বিভিন্ন বাদ্য যন্ত্র, খেলাধুলার উপকরণ, প্রশস্ত মাঠ, বাস্কেট বল গ্রাউন্ড ইত্যাদি পড়াশুনার পাশাপাশি সহপাঠ কার্যক্রমে শিক্ষার্থীদের সাবলীল ও প্রাণবন্ত করে তুলতে সাহায্য করছে। প্রতি বছর নিয়মিত কলেজ বার্ষিকী ‘ছায়াতরু’ প্রকাশিত হয়, যার মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা তাদের সুপ্ত প্রতিভা বিকাশের সুযোগ পায়। শিক্ষার্থীদের মহৎ চরিত্রের গুণাবলী অর্জন তথা সৎ সাহস, নৈতিকতা ও মানবিক মূল্যবোধের সুরুচিশীল মনোভাব গঠনের ক্ষেত্রে এই প্রতিষ্ঠান সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে আসছে। শিক্ষার গুণগত মান বৃদ্ধি, দেশ ও জাতির উন্নয়ন, সুদক্ষ নাগরিক সৃষ্টিতে এই প্রতিষ্ঠান সর্বদা সচেষ্ট। ‘শিক্ষা, সংযম ও শৃঙ্খলা’ প্রতিষ্ঠানের এই মূলমন্ত্রকে ধারণ করে প্রতিটি শিক্ষার্থী আগামী দিনে জাতি গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে, এ আমার প্রত্যাশা।

পরিশেষে, এ সামগ্রিক সাফল্যে কলেজের শিক্ষার্থী, শিক্ষক মন্ডলী, অভিভাবকবৃন্দ ও প্রতিষ্ঠান সংশ্লিষ্ঠ সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

গ্রুপ ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ মনজুরুল হাসান , পিএসসি

অধ্যক্ষ
বিএএফ শাহীন কলেজ শমশেরনগর